গ্রীষ্মকাল, শুক্রবার, ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,২৫শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি, দুপুর ১২:২৯
মোট আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর |

সারাদেশ

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

হচ্ছেনা বিক্রি মাথায় হাত চাষিদের…

admin

অপূর্ব হাসান, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

ধানের জেলা দিনাজপুরে এবার বৈরী আবহাওয়ার কারণে লিচু চাষে বিপর্যয় ঘটেছে। প্রায় ৩২ হাজার মেট্রিক টন লিচু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও হয়েছে তার অর্ধেক। তারপরেও বাজারে ভালো দাম না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন লিচু চাষী ও লিচু বাগান ক্রেতারা।

রসালো ও সুস্বাদু এই লিচু আকৃষ্ট করছে ভোক্তাদের। ফলে ‘প্রকৃতির রসগোল্লা’ খ্যাত মৌসূমী ফলটি এখন দিনাজপুরে অনেকে চাষ করছে। লিচু পাড়া, সংগ্রহ, বাছাই, কেনা-বেচা আর বহনের কাজে মৌসুমী কর্ম-সংস্থানে জড়িয়ে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ।

কিন্তু এবার বৈরী আবহাওয়ায় লিচুর ফলন বিপর্যয় ঘটেছে বলে জানিযেছেন, বিরল উপজেলার দক্ষিণ জগতপুর এলাকার লিচু বাগান মালিক প্রকৌশলী মাহবুব আলী।

তিনি জানান, প্রায় ১৫ বছরেও এমন হয়নি বাগানের অবস্থা। বৈরী আবহাওয়াই এর জন্য দায়ী। লাভজনক ফসল হওয়ায় ধানের জেলা দিনাজপুরে এবার লিচুর বাগান করেছে অনেকে।

তিনি আরও জানান, এবার ৪ হাজার ৫৭ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হয়েছে। মাদ্রাজী, বেদেনা, বোম্বাই, চায়না-থ্রি, চায়না-টু, হাড়িয়া ও কাঠালি জাতের লিচুর চাষ হয়েছে বেশি। বিগত বছরে ফরমালিন আতংকে লিচুর বাজারে ধস নামায় এবার বিষমুক্ত লিচু চাষে নেমেছেন এ জেলার বাগান মালিকরা।

এদিকে লিচুর ফলন বিপর্যয় ও বাজারে ভালো দাম না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন লিচু চাষী ও লিচু বাগান ক্রেতারা।

দশ মাইল এলাকার লিচু বাগান ক্রেতা মমিনুল ইসলাম জানিয়েছেন, এবার প্রচুর লোকসান হয়েছে তার। বাগান কিনেছেন বেশি দামে। কিন্তু আশানুরূপ ফলন আসেনি। তাছাড়া লিচুর দামও কম।

লিচু বেচা-কেনায় থানা মোড় নিউ মার্কেট, বাহাদুর বাজার, পুলহাট ও দশ মাইলসহ বেশ কিছু এলাকায় মৌসুমী লিচু বাজার গড়ে উঠলেও অনেকে বাগান থেকে কিনছে লিচু। লিচু কেনার জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাগানে ছুঁটে আসছেন মানুষ। রাজধানী ঢাকা থেকে দিনাজপুরে বাগানের লিচু ক্রয় করতে এসেছেন সাইদুল ইসলাম।

তিনি জানান, মূলত দিনাজপুরের লিচুর ভালো স্বাদ ও বিষমুক্ত হওয়ায় বাগান থেকে লিচু নিতে এসেছি। নিজের জন্য এবং অফিসের বস ও আত্মীয়-স্বজনকে দিবো এই লিচু। তাই এতো দূর ছুঁটে আসা।

এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. গোলাম মোস্তফা জানিয়েছে, চলতি মৌসুমে প্রায় ৩২ হাজার মেট্রিন টন লিচু উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। কিন্তু আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় ফলন হয়েছে তার অর্ধেক। তবুও বিষমুক্ত লিচু হওয়ায় এ জেলার লিচুর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এ জেলায় প্রায় দু’শ কোটি টাকার লিচুর বাণিজ্য হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ধানের জেলা দিনাজপুরে এবার লিচু চাষে চরম বিপর্যয় ঘটেছে। একদিকে লিচুর ফলন না পাওয়ায অন্যদিকে লিচু’র ন্যায্য মূল্য না থাকায় বিপাকে পড়েছেন কৃষক। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে আগামীতে এ অঞ্চলে লিচু চাষের পরিধি কমে যাবে এমনটাই মন্তব্য করেছেন কৃষিবিদরা।

০৬-০৬-১৭-০০-১৯০

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

সর্বশেষ খবর

Leave a Reply

সর্বাধিক পঠিত

আরো খবর পড়ুন...

বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম :
প্রধান সম্পাদক : লায়ন মোমিন মেহেদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : লায়ন শান্তা ফারজানা
৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা
email: mominmahadi@gmail.com
shanta.farjana@yahoo.co.uk
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।