গ্রীষ্মকাল, মঙ্গলবার, ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,২৯শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি, রাত ৪:৫১
মোট আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর |

সারাদেশ

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

বউ শাশুড়ির ঝাল মিষ্টি সম্পর্ক…

admin

নূরজাহান নীরা, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

সুখী থাকতে কে না চায়! আর সুখী থাকতে কত জনই বা পারে! প্রেম, ভালোবাসা, বিয়ে সবই একই সূত্রে গাথাঁ। বর্তমান সময়ে বিবাহিত জীবনে সুখী এমন মানুষ কমই পাওয়া যায়। কেউ নিজের বউ নিয়ে অসুখী, আবার কেউ নিজের স্বামীকে নিয়ে। কিন্তু সবচেয়ে বড় সমস্যাটা দেখা দেয় যখন বউ-শাশুড়ির মধ্যে মনোমালিন্য হয়। বউ-শাশুড়ির মধ্যে কিছুটা মানসিক দূরত্ব থাকাটাই স্বাভাবিক।

কথায় বলে, সংসার সুখী হয় রমনীর গুণে… আবার যে রাধে সে চুলও বাঁধে…. কাজেই বুঝা যাচ্ছে একটি পরিবারে বউ মানে কি! কাজেই আপনাকেই আপনার সংসার বুঝে নিতে হবে।

কিন্তু সেই মানসিক দূরত্বটা যদি রীতিমতো ঝগড়াঝাটির কারণ হয়ে দাড়ায় তাহলে তা সৃষ্টি করে সাংসারিক অশান্তি। অনেক সময় এসব কারণে স্বামী স্ত্রীর মধ্যেও শুরু হয় দাম্পত্য কলহ। এইসব সমস্যার কারণে অনেক সময় বিবাহ বিচ্ছেদও ঘটে থাকে। সংসারের কাজে দুজনই অংশ নিলে দম্পতিদের মধ্যে সংযোগ বাড়ে। যে সকল জুটি তাদের বিশের কোঠায় সম্পর্কের নানা টানাপড়েন সামলে ওঠেন তারা বৈবাহিক জীবনে অনেক সুখী থাকতে পারেন।

শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে এই নিত্যদিনের মনোমালিন্য এড়িয়ে চলার আছে কিছু সহজ উপায়। এই উপায়গুলো অনুসরণের মাধ্যমে আপনি হয়ে উঠতে পারবেন আপনার শ্বশুরবাড়ির একজন আদর্শ পুত্রবধূ। সেই সঙ্গে সাংসারিক জীবনেও মিলবে শান্তি। আসুন জেনে নেয়া যাক আদর্শ পুত্রবধূ হয়ে ওঠার উপায়।

সময় নিন
নতুন বিয়ে করে এসেই একটি পরিবারকে পুরোপুরি বুঝে ওঠা সম্ভব না। তাই বিয়ের পর একটু কিছুদিন সময় নিন। এই সময়টাতে প্রথমেই কোনো মতামত প্রদান কিংবা সিদ্ধান্ত না নেয়াই ভালো। আগে শ্বশুরবাড়ির প্রতিটি মানুষ সম্পর্কে ধারণা নিন। কার স্বভাব কেমন, কে আপনাকে পছন্দ কিংবা অপছন্দ করে ইত্যাদি জেনে নিন। চেষ্টা করুন সকলের সঙ্গে আস্তে আস্তে মেলামেশার মাধ্যমে সহজ সম্পর্ক তৈরি করতে।

ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করুন
শ্বশুরবাড়ির প্রতি ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করুন। আপনি ভিন্ন পরিবেশে বেড়ে উঠেছেন। আপনার সঙ্গে আপনার শ্বশুরবাড়ির সবার মনের মিল নাও হতে পারে। কিন্তু তাই বলে নেতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করে শুধু শুধু নিজের সংসারে অশান্তি ডেকে না আনাই ভালো। বিশেষ করে আপনার সঙ্গে আপনার শাশুড়ির সম্পর্কটি সবসময় ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখুন।

মা ও শাশুড়ির সমতা বজায় রাখুন
আপনার শাশুড়ি ও আপনার মায়ের মধ্যে সমতা বজায় রাখুন। মায়ের জন্য উপহার কিনলে শাশুড়ির জন্যও কিনুন। কিংবা মাকে দেখতে গেলে মাঝে মাঝে শাশুড়িকেও সঙ্গে নিয়ে যান। এক মূহূর্তের জন্যও ভুলে যাবেন না যে শাশুড়িও আপনার মায়ের মতই একজন। শাশুড়ির সামনে মায়ের পক্ষ নিয়ে কথা না বলাই ভালো, এতে অনেক শাশুড়িই রুঢ় হন। তাকে সব সময়েই বুঝিয়ে দিন যে আপনার কাছে দুজনই সমান এবং আপনি দুজনকেই সম্মান করেন।প্রত্যাশা কমিয়ে ফেলুন
বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িই মেয়েদের নিজের বাড়ি, এটা কথার কথা। বাস্তবতা এটাই যে নিজের বাড়ির মতই সব কিছু শ্বশুরবাড়িতে আশা করা ঠিক না। আপনি কি চাইছেন, আপনি কি পছন্দ করেন এসব বিষয় আপনার নিজের বাড়িতে সবাই খেয়াল রাখবে কারণ আপনি ছোটবেলা থেকে সেখানেই বেড়ে উঠেছেন। কিন্তু আপনার শ্বশুরবাড়িতেও সেটা আশা করে না পেলে মন খারাপ করে বসে থাকবেন না। কারণ আপনার সঙ্গে তাদের পরিচয় খুবই স্বল্প সময়ের।

আলোচনা করুন
শ্বশুরবাড়িতে যে কোনো সমস্যায় পড়লে কিংবা কেউ মনে কষ্ট দিলে সেটা শাশুড়ি ও স্বামীর সঙ্গে সরাসরি আলোচনা করুন। আর ঝামেলাটি যদি শাশুড়ির সঙ্গেই হয়, তাহলেও তাকে বিনীতভাবে বুঝিয়ে বলুন যে তার আচরণে আপনি মনে কষ্ট পেয়েছেন। আর তা যদি সম্ভব না হয়, তাহলে আপনার স্বামীর সঙ্গে সমস্যাটি নিয়ে আলোচনা করুন। যে কোনো পরিস্থিতিতেই মনের কষ্ট চেপে রাখবেন না। মনের কষ্ট আলোচনা করে সমাধান না করে চেপে রাখলে সম্পর্কে ফাটল ধরে যায় সহজেই।

আসুন আমরা আর একটু সহনশীন হই। নতুন যে মেয়েটি আপনার বাড়ীতে এসেছে তাকে একটু সময় এবং তার ভুলগুলিকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখে তাকে কাছে টেনে নিন। দেখবেন আপনারা যেমন শান্তিতে থাকবেন একই সঙ্গে আপনার সন্তানও শান্তিতে থাকবে। আর নতুন প্রজন্ম পাবে দাদা-দাদীর আদর।

১৭/৪/২০১৭/৬০/

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

সর্বশেষ খবর

Leave a Reply

সর্বাধিক পঠিত

আরো খবর পড়ুন...

বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম :
প্রধান সম্পাদক : লায়ন মোমিন মেহেদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : লায়ন শান্তা ফারজানা
৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা
email: mominmahadi@gmail.com
shanta.farjana@yahoo.co.uk
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।