গ্রীষ্মকাল, মঙ্গলবার, ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,২৯শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি, বিকাল ৩:৪০
মোট আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর |

সারাদেশ

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

তিন শতক বেচে থাকা ব্যক্তির মৃত্যু…

admin

মনির/জামান, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি এমা মোরানো ১১৭ বছর বয়সে ইতালিতে মারা গেছেন। ১৮৯৯ সালে ইটালির পিডমন্ট অঞ্চলে জন্মগ্রহণ করেছিলেন তিনি। নথিপত্র অনুযায়ী, ১৮শ’ শতকে জন্ম নেয়া জীবিত মানুষদের মধ্যে তিনিই ছিলেন শেষ ব্যক্তি।

স্থানীয় সময় শনিবার বিকালে উত্তরাঞ্চলীয় ভারবানিয়া শহরে নিজ বাসভবনে মারা যান এমা মোরান। তার চিকিৎসক কার্লো বাভা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো।

তিনি যে জীবদ্দশায় শুধু তিনটি শতক দেখেছেন তাই নয়; নির্যাতনমূলক বৈবাহিক সম্পর্ক থেকে তিনি বেরিয়ে এসেছেন, তার একমাত্র শিশুপুত্রকেও হারাতে হয়েছে, দুটি বিশ্বযুদ্ধ তিনি দেখেছেন এবং ৯০ বার ইতালির সরকার পরিবর্তন হতে দেখেছেন। মোরানো ছিলেন আট ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড়, যাদের সবাই তার আগেই মারা গেছেন।

নিজের দীর্ঘায়ুর কারণ হিসেবে তার জিনগত বৈশিষ্ট্য এবং দিনে তিনটি ডিম খাওয়ার অভ্যাসের কথা বলেছিলেন । মোরানোর মতে, তার দীর্ঘায়ুর একটি বড় কারণ তার বংশগতি বা জিনগত বৈশিষ্ট্য। তার মা-ও ৯১ বছর পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন এবং তার কয়েকজন বোনও ১০০ বছর পার করেছিলেন।

তবে একইসাথে তার দীর্ঘায়ুর পেছনে তার অস্বাভাবিক একটি খাদ্যাভ্যাসও রয়েছে। দিনে তিনটি ডিম খেতেন তিনি। তার মধ্যে দুটিই কাঁচা থেকেতন। ৯০ বছরের বেশি সময় ধরে প্রতিদিন তিনি এই খাবার খেয়ে আসছেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর এক চিকিৎসক তার শরীরে অ্যানিমিয়া সনাক্ত করলে তিনি এই খাদ্যাভ্যাস শুরু করেন। তবে সম্প্রতি তিনি পরিমাণ কমিয়ে দুটো ডিম খাচ্ছিলেন, সাথে কিছু বিস্কুট।

২৭ বছর ধরে মোরানোর চিকিৎসা করেছিলেন চিকিৎসক কার্লো বাভা। তিনি বলেন, ‘মোরানো সবজি বা ফল খুবই কম খেতেন। আমি যখন প্রথম তাকে দেখি তখন তিনি দিনে তিনটি ডিম খেতেন, দুটি কাঁচা এবং বিকেলে একটি অমলেট। আর রাতে খেতেন মুরগির মাংস।’

মোরানো তার দীর্ঘায়ুর পেছনে ১৯৩৮ সালে তার স্বামীকে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্তকেও গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে মনে করেন। এর এক বছর আগে তার ৬ মাস বয়সী শিশুপুত্র মারা গিয়েছিল। তিনি বলেছিলেন, তার বিবাহিত জীবন কখনোই ভালো ছিল না। তিনি যে ছেলেকে ভালোবাসতেন, সে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে মারা গিয়েছিল এবং অন্য কাউকে বিয়ে করার কোনো ইচ্ছেও ছিল না তার।

১১২ বছর বয়সে ইটালির লা স্টাম্পা পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘বাধ্য হয়েই তাকে বিয়ে করতে হয়েছিল। সে আমাকে বলেছিল, আমাকে বিয়ে কর নাহলে তোমাকে মেরে ফেলব।’

শেষপর্যন্ত তিনি আর সহ্য করতে পারেননি এবং ১৯৩৮ সালে স্বামীর কাছ থেকে পৃথক হয়ে যান। যদিও তারা বিবাহবিচ্ছেদ করেননি এবং ১৯৭৮ সালে তার স্বামী মারা যান। আর কখনো বিয়ে না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। নিউইয়র্ক টাইমসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘কারো আধিপত্য আমি মেনে নিতে চাইনি ।’

মোরানো ৭৫ বছর বয়স পর্যন্ত কাজ করে গেছেন। মাত্র কয়েক বছর আগে তার দেখভালের জন্য পূর্ণকালীন একজন সাহায্যকারী নেন তিনি। গত ২০ বছর ধরে তিনি তার দুই কক্ষের ছোট অ্যাপার্টমেন্ট ছেড়ে বেরও হননি।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জেরন্টোলজি রিসার্চ গ্রুপের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষ এখন জ্যামাইকার ভায়োলেট ব্রাউন, যার জন্ম ১৯০০ সালের ১০ মার্চ।

১৬/৪/২০১৭/৭০/তৌ/আ/

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

সর্বশেষ খবর

Leave a Reply

সর্বাধিক পঠিত

আরো খবর পড়ুন...

বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম :
প্রধান সম্পাদক : লায়ন মোমিন মেহেদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : লায়ন শান্তা ফারজানা
৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা
email: mominmahadi@gmail.com
shanta.farjana@yahoo.co.uk
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।