বসন্তকাল, রবিবার, ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,২৩শে রজব, ১৪৪২ হিজরি, সন্ধ্যা ৬:৩৯
মোট আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর |

সারাদেশ

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

বাধঁ দিয়ে খনন নদী, মাঠ যেন সাগর…

admin

ডেস্ক রিপোর্ট ,বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমflooding-bangladesh-jpg

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় মহাস্থান এলাকায় করতোয়া নদীতে বাঁধ দিয়ে নদী খনন করার ফলে ৫০ একর জমির বোরো ধানসহ অন্যান্য ফসল তলিয়ে গেছে। এতে করে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছে।

জানা গেছে, বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মহাস্থান মহাসড়কের সেতুর কাছ থেকে রায়নগর ইউনিয়নের অনন্তবালা গ্রামের মসজিদ পর্যন্ত দুই কিলোমিটার করতোয়া নদী খননের কাজ শুরু করেছে সরকার। এজন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৮০ লাখ টাকা। গত ৯ ফেব্রুয়ারি অনন্তবালা মসজিদের কাছে নদীতে বাঁধ দিয়ে খননকাজ শুরু করা হয়। মহাস্থান সেতুর কাছ থেকে উত্তর দিক ধরে খনন শুরু হয়েছে। বর্তমানে শীলাদেবী ঘাট ও জাদুঘরের সামনে মনিতলা পর্যন্ত খনন কাজ চলছে। এ দিকে গত ক’দিনের প্রবল বৃষ্টিপাতে বাঁধ দেয়া অংশের উত্তরে পানি আটকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে নিচু এলাকার বোরো ধান, ভুট্টাক্ষেত, মিষ্টি আলু, মুলাসহ প্রায় ৫০ একর জমির ফসল তলিয়ে গেছে।

রায়নগর ইউনিয়নের দহপাড়া গ্রামের কৃষক আতাউর রহমান খোকন, অছিতুল্লাহ পুটু মিয়া জানান, তাদের প্রত্যেকেরই এক থেকে দেড় বিঘা জমির বোরো ধান ডুবে গেছে। আবিলম্বে বাঁধটি অপসারণ করা না হলে ওই অঞ্চলের সব বোরো জমি থলিয়ে যাবে। এতে করে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবার আশঙ্কায় চিন্তিত হয়ে পড়েছে।

শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ আহমেদ জানান, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের মাঠ কর্মীরা বিষয়টি সরেজমিনে দেখে জানানোর পর গতকাল সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গোলাম মো. শাহনেওয়াজকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডে কর্মকর্তাদের সঙ্গে বসে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেবার আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি জানান, পারি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে করে ক্ষতির পরিমানও বাড়ছে।

বগুড়ার পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী রুহুল আমিন জানান, নদী খননের কাজ শেষ হতে আরও ২০ থেকে ২৫ দিন লাগবে। বর্তমানে ৫টি স্কেভেটর যন্ত্র দিনভর কাজ করছে। এই মুহূর্তে বাঁধটি অপসারন করা হলে পানি জমে খনন কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। তবে ঠিকাদার বিকল্পভাবে একটি পাইপ বসিয়ে ধীরে ধীরে পানি নিষ্কাশন করছে।

 

৪/৪/২০১৭/২৪০/তৌ/আ/

Share on facebook
Facebook
Share on google
Google+
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

সর্বশেষ খবর

Leave a Reply

সর্বাধিক পঠিত

আরো খবর পড়ুন...

বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম :
প্রধান সম্পাদক : লায়ন মোমিন মেহেদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : লায়ন শান্তা ফারজানা
৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা
email: mominmahadi@gmail.com
shanta.farjana@yahoo.co.uk
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।