শহীদ নগরের যুদ্ধদিবস আজ…

ইব্রাহিম খলিল প্রধান, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার ঐতিহাসিক ‘ডাববাগান’ যুদ্ধ দিবস আজ বুধবার। ১৯৭১ সালের এই দিনে সাঁথিয়া উপজেলার ডাববাগানে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধা ও ইপিআর বাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধ সংঘটিত হয়।

পাবনা শহর থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার পূর্বে উত্তর জনপদের প্রবেশদ্বার নগরবাড়ী-বগুড়া মহাসড়ক সংলগ্ন পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার পাইকরহাটি গ্রামের একটি পাড়ার নাম ছিল ডাববাগান। বর্তমান নাম ‘শহীদনগর’।

১৯৭১ সালের ১৯ এপ্রিল ঢাকা থেকে উত্তর জনপদে প্রবেশের পথে পাক হানাদার বাহিনী ‘ডাববাগান’ অর্থাৎ বর্তমান শহীদনগর এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা ও ইপিআর বাহীনির সদস্যদের প্রতিরোধের সম্মুখীন হন। সে সময় মুক্তিসেনাদের পক্ষে ওই যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ইপিআর সুবেদার গাজী আলী আকবর। এ যুদ্ধে বেঙ্গল রেজিমেন্ট, ইপিআর, পুলিশ বাহিনী, আনসার সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধারা অংশ নিয়েছিলেন।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, একাত্তরের ১৯ এপ্রিল দুপুরে নগরবাড়ী ঘাট হয়ে এই রাস্তা দিয়ে পাকিসেনারা বগুড়া যাওয়ার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে মুক্তিসেনারা সাঁথিয়া উপজেলার ডাববাগানে অবস্থান নেন। পাকিস্তানি সেনারা সম্মুখ যুদ্ধে টিকতে না পেরে পিছু হটে নগরবাড়ী ফিরে যায়। যুদ্ধে প্রায় ৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়।

ওই সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন ইপিআর হাবিলদার মমতাজ আলী, হাবিলদার আব্দুর রাজ্জাক, নায়েক হাবিবুর রহমান, সিপাহী এমদাদুল হক, সিপাহী ঈমান আলী, সিপাহী রমজান আলীসহ আরও অনেক ইপিআর সদস্য ও নাম না জানা বহু মুক্তিযোদ্ধা।

মুক্তিযুদ্ধকালীন সাঁথিয়া উপজেলার কমান্ডার ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন জানান, সম্মুখ যুদ্ধে পরাজয় বরণের পর পিছু হটে যাওয়া পাকিস্তানি বাহিনী নতুন করে আক্রমণের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতে থাকে। শক্তি বৃদ্ধি করে রাতে আবার আক্রমণ করে পাকসেনারা। এবার পাকবাহিনীর বিশাল শক্তির কাছে টিকতে না পেরে মুক্তিসেনারা পিছু হটে গেলে পাকসেনারা গ্রামবাসীর ওপর অমানবিক নির্যাতন চালায়। একে একে পুঁড়িয়ে দেয় ডাববাগানের পার্শ্ববর্তী রামভদ্রবাটি, কোড়িয়াল, বড়গ্রাম, সাটিয়াকোলা গ্রাম। পাকসেনারা নির্বিচারে গুলি চালায় নিরীহ গ্রামবাসীর উপর। লোকজনদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধরে এনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে পাখির মতো গুলি করে হত্যা করে শ’ শ’ স্বাধীনতাকামী গ্রামবাসীকে।

১৯/৪/২০১৭/১০/