যমুনা নদীর ভাঙনে নিঃস্ব সাড়ে তিনশ পরিবার…

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর ভাঙনে ঘরবাড়ি ও জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে সাড়ে তিনশ পরিবার। ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটছে নদী পাড়ের সহরসাধিক পরিবারের। ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগ এলাকাবাসীর। ভাঙন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ভূঞাপুরের গাবসারা ইউনিয়নের ডিগ্রিরচর, রাজাপুর, সরইপাড়া, ফলদা পাড়া, ভূঞাপাড়া ও অর্জুনা ইউনিয়নের অর্জুনা গ্রামে যমুনার ব্যাপক ভাঙন চলছে।। গত তিন দিনের ভাঙনে এসব এলাকার তিন শতাধিক পরিবার গৃহহীন ও কয়েকশ একর ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর মধ্যে গাবসারা ইউনিয়নে ২০০ ও অর্জুনা ইউনিয়নে ১০০টি পরিবার রয়েছে। নিজেদের ভিটেমাটি ও ফসলি জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে পরিবারগুলো। ভাঙন আতঙ্কে দিন কাটছে অনেকের। দুই দিন ধরে যমুনা অনেক বেশি আগ্রাসী হয়ে উঠেছে।

স্থানীয় রাবি্ব আহমেদ বলেন, প্রতিবছর প্রায় ৩০০-৪০০ বাড়ি-ঘর এই যমুনায় নদীর ছোঁবলে বিলীন হয়ে যায় এবার তা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। এই এলাকায় জিও ব্যাগে মাটি মিশ্রিত বালুর বস্তা ফেলা হচ্ছে- কিন্তু তা কোন কাজেই আসছে না বলে মত এই গ্রামবাসীর। এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রতিবছরই বন্যা আসার আগে অর্জুনা গ্রামে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের দায়সারা সংস্কার কাজ করে থাকে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ড। বাঁধ সংস্কারের জন্য যত টাকা বরাদ্দ হয়, এর অর্ধেক টাকাও বাঁধ সংস্কার কাজে ব্যবহার করা হয় না। সমপ্রতি নদীর পাড় দিয়ে মাটি মিশ্রিত বালু ফেলে বাঁধের ক্ষতিগ্রস্ত এ অংশটুকু নামমাত্র মোরামত করেছে। কয়েকদিনে অস্বাভাবিকভাবে পানি বাড়ায় ভাঙন আরও বেড়েছে। স্থানীয়দের আশঙ্কা, ভাঙন রোধে এখনই কার্যকর কোন উদ্যোগ না নিলে বর্ষায় তীব্র আকার ধারণ করবে। ভাঙন ঠেকাতে পানি উন্নয়ন বোর্ড গত বছর ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে জিও ব্যাগ ফেলেছে। অনিময় ও দুর্নীতির কারণে তা কোন কাজে আসেনি বলে অভিযোগ করছেন তারা। এসব অভিযোগ অস্বীকার করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৗশলী (সেন্ট্রাল জোন) মো. ফখরুল ইসলাম বলেন, তীব্র ভাঙনে জিও ব্যাগ কার্যকর নয়। তিনি বলেন, ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছি। প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। আগামী বছরে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণেরও আশ্বাস দেন ফখরুল ইসলাম। এদিকে নদী ভাঙন ঠেকানো ও নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে জামালপুরের পিংনা থেকে টাঙ্গাইলের জোকারচর পর্যন্ত বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন এলাকাবাসী। এর আগে স্থানীয় এমপি বাঁধটি নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও পুরো বাঁধ নির্মাণ আজ পর্যন্ত বাস্তবে রূপ নেয়নি। এবিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক খান মোঃ নুরুল আমিন বলেন, ভূঞাপুরে যমুনা নদীর ভাঙ্গনরোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ও ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অপূর্ব হাসান ১৭-০৬-১৭-০০-৩০