মোরা’য় নিহত ৭ : মোমিন মেহেদীর শোক

নূরজাহান নীরা
ঘূর্ণিঝড় মোরায় উপকূলীয় এলাকায় চারজন মারা গেছেন; আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার পথে এবং আশ্রয়কেন্দ্রে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছে আরও দুইজনের। মঙ্গলবার ভোরে উপকূলে আঘাত হানার পর স্থলভাগে এসে কমতে শুরু করেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোরার শক্তি। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ক্ষয়ক্ষতির চিত্রও স্পষ্ট হতে শুরু করেছে। উপকূলীয় জেলাগুলোতে ঝড়ে প্রায় ২০ হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন। আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, সারাদিনই চট্টগ্রাম, কক্সবাজারসহ উপকূলীয় জেলাগুলোতে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া থাকতে পারে। পরিস্থিতির উন্নতি হলে মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হবে। আমাদের চট্টগ্রাম ব্যুরো ও জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- কক্সবাজারের চকরিয়ায় ঝড়ের সময় গাছ চাপায় দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। তাছাড়া আশ্রয়কেন্দ্রে ‘হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে’ মারা গেছেন এক বৃদ্ধা। চকরিয়া থানার ওসি বখতিয়ার আহমদ জানান, মঙ্গলবার ভোরে ঝড়ের সময় গাছচাপা পড়ে রহমত উল্লাহ ও সায়রা খাতুন নামে দুইজনের মৃত্যু হয়।