ভয়াবহ পানি সংকট চট্টগ্রামে…

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

পাহাড় ধস ও অতিবৃষ্টির কারণে কর্ণফুলী এবং হালদা নদীর পানিতে বালু ও মাটির পরিমান মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি পাওয়ায় বিগত এক সপ্তাহ যাবৎ তীব্র পানির সংকটে আছে চট্টগ্রাম নগরবাসী। তবে খুব শীঘ্রই এই সংকট কাটিয়ে নগরবাসীকে আবারো চাহিদা মতো পানি সরবরাহ করার আশ্বাস চট্টগ্রাম ওয়াসার।

 

ওয়াসা সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম ওয়াসার শেখ হাসিনা পানি শোধনাগার থেকে প্রতিদিন ১৪ কোটি লিটার পানি উৎপাদন হতো। এছাড়াও মোহরা পানি শোধানাগার থেকে পাওয়া যেত ৯ কোটি লিটার পানি। কিন্তু রাঙ্গুনিয়ায় পাহাড় ধস ও অতি বর্ষণের কারণে শেখ হাসিনা পানি শোধনাগার থেকে পাওয়া যাচ্ছে ৫ কোটি এবং মোহরা পানি শোধানাগার থেকে মাত্র ৮ কোটি লিটার পানি। যা অর্ধেকে নেমে আসায় তীব্র পানির সংকটে ভুগছে নগরবাসী।

 

চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ বলেন, একটানা ৫ দিন অতিবর্ষণের ফলে কর্ণফুলী ও হালদা নদীর পানিতে বালু ও কাদার (টারবিডিটি) পরিমাণ মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি পাওয়ায় আগের চেয়ে ১০ কোটি লিটার পানি কম পাওয়া যাচ্ছে। যেখানা নগরবাসীর চাহিদা ৫০ কোটি লিটার। কিন্তু শেখ হাসিনা শোধানাগার, মোহরা এবং গভীর নলকূপ মিলে পানি সরবরাহ করতো মাত্র ৩২ কোটি লিটার পানি।

 

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে এখন এর চেয়ে কম পানি পাওয়া যাচ্ছে। যার ফলে অধিক সংকটে পড়েছে ওয়াসা। তবে খুব শিগগিরই এই সংকট কাটিয়ে নগরবাসীকে আবারো চাহিদা মতো পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

নগরীর দামপাড়ার বাসিন্দা রেহানা আক্তার রত্না বিবার্তাকে বলেন, এক সপ্তাহ ধরে ঠিক মতো পানি আসেনা। যতটুকু পানি পাওয়া যায় তাও ঘোলা ও দুর্গন্ধ। প্রতিদিন পানি কিনে ব্যবহার করতে হচ্ছে আমাদের। বেশি সমস্যা হচ্ছে রান্না ও খাবারের পানি নিয়ে।

১৭-০৬-১৭-০০-১২০ মনির জামান