মে 31

ভেজালবিরোধী অভিযান সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা….

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

খাদ্যে ভেজাল থাকায় রাজধানীর চানখারপুলের ক্যান্ডেল লাইট রেস্টুরেন্ট ও বনফুল অ্যান্ড কোংকে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছে করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার দিনব্যাপী এ ভেজালবিরোধী যৌথ অভিযান পরিচালনা করে ঢাকা জেলা প্রশাসন, এপিবিএন-৫, বিএসটিআই। অভিযানে উঠে আসে এ অনিয়ম ও প্রতারণার চিত্র।

ঢাকা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদ এলাহী জানান, অন্যায়ভাবে পঁচা-বাসি, ভেজাল খাবার তৈরি ও বিক্রির অভিযোগে ক্যান্ডেল লাইট রেস্টুরেন্ট এর মালিক স্বপন চৌধুরীকে তিন লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয় এবং বনফুল অ্যান্ড কোং থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

তিনি আরও বলেন, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ। দীর্ঘদিনের পচা বাঁধাকপি। দুর্গন্ধে নাকে নেয়া দায়। বাজার থেকে সবচেয়ে নিম্ন মানের পঁচা সবজি সংগ্রহে রাখা হয়েছে। পঁচা বেগুন, গাজর, শসা। দায়িত্বশীল কেউ বলতে চান না না কবে কত দামে সেগুলো কেনা হয়েছে। ফ্রিজের ভেতর পঁচা-বাসি মাংস। পাঁচ সাতদিনের তেল বারবার ব্যবহারের করে কুচকুচে কালো মবিলের মত। সবকিছু দিয়ে তৈরি হচ্ছে ইফতার সামগ্রী। নেই কোন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার লেশমাত্র। ঘটনাটি রাস্তার কোন হোটেল নয়। এটি রাজধানীর চানখারপুলের ক্যান্ডেল লাইট রেস্টুরেন্ট। মোবাইল কোর্ট আগমনের খবরে ভেতর থেকে তালা মেরে রাখা হয়। তালা খুলে ভেতরে ঢুকে মোবাইল কোর্ট। এছাড়াও চানখারপুলের বনফুল অ্যান্ড কোং প্রতিষ্ঠানটিতে খাবারের প্যাকেটের গায়ে মেয়াদ ও প্রস্তুতির তারিখবিহীন বেকারী খাদ্যদ্রব্য উদ্ধার করা হয়। পুরানো বাসী জিলাপি বিক্রির জন্য প্রদর্শনীতে দেখা যায়।

তৌহিদ এলাহী জানান, আজ ভ্রাম্যমাণ আদালতটি আরও ছয়টি হোটেল ও খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুতকারী কারখানায় অভিযান চালায়। প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচ্ছন্নতা ও প্রস্তুতকৃত খাদ্যসামগ্রীর মান দেখে সন্তোষ প্রকাশ করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধন্যবাদ প্রদান করা হয় এবং অধিকতর মান উন্নয়নের জন্য পরামর্শ দেয়া হয়।

অভিযানে থাকা সিনিয়র এএসপি সাইদুর রহমান রুবেল জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ নজরদারির পর প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। দীর্ঘদিন যাবৎ অভিযানের কারণে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের মান আগের তুলনায় বেশ ভাল। যাদের সমস্যা পাওয়া যাচ্ছে তাদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে।

অভিযানে উপস্থিত ছিলেন ৫-এপিবিএন এর এএসপি বিল্লাল হোসেন এবং বিএসটিআই এর ফিল্ড অফিসার রিগ্যান বৈদ্য।

৩১-০৫-২০১৭-০০-১৫০