ফুফার ধর্ষণে ৪মাসের অন্তসত্তা ৫ম শ্রেনীর কিশোরী…

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ফুফার বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ দিন ধরে ধর্ষণের পর ওই শিশু চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ায় বিষয়টি জানাজানি হলে ফুলবাড়ী থানায় একটি ধর্ষণ মামলা হয়।

এ ঘটনায় শনিবার সকাল পর্যন্ত পুলিশ ধর্ষককে গ্রেফতার করতে পারেনি। ঘটনাটি জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের গোড়কমন্ডল গ্রামে ঘটেছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গ্রামের গোড়কমন্ডল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে তার ফুফা, একই গ্রামের মৃত মেছের আলী মুন্সির ছেলে ও চার সন্তানের জনক আমিনুল ইসলাম (৫১) ভয়ভীতি দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে। ধর্ষণের কথা প্রকাশ করতে চাইলে ওই ছাত্রীকে হুমকি দেয় আমিনুল।

ভয়ে কাউকে কিছু না বললেও ধীরে ধীরে মেয়েটির দৈহিক পরিবর্তন দেখা দেয়। পরিবারের সদস্যরা সপ্তাহখানেক আগে মেয়েটির শারীরিক পরিবর্তনে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি বুঝতে পারে। এদিকে, বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে আমিনুল আত্মগোপন করেন। পরে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে ফুলবাড়ী থানায় ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেন।

মেয়েটির মা জানান, আমার মেয়েকে ধর্ষণ ও অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি আমিনুলের স্ত্রী মিনা বেগম জানতেন। তিনি তার স্বামীকে বাঁচাতে আমার মেয়েকে ওষুধ ও লতাপাতা খাইয়ে গর্ভপাত করানোর চেষ্টাও করে। আমি এ অন্যায়ের বিচার চাই।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য অনের উদ্দিন জানান, আমিনুল লালমনিরহাট জেলার মেঘারাম গ্রামের বাসিন্দা। কিন্তু বিগত ১১ বছর আগে তিনি এ গ্রামে এসে বাদশার চাচাত বোন মিনা বেগমকে বিয়ে করেন। তারপর থেকে সে শ্বশুড় বাড়িতে বসবাস শুরু করে। ধর্ষণের ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর থেকেই তিনি পলাতক।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার ফুয়াদ রুহানী জানান, অভিযুক্ত আমিনুলকে ধরতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

১৭-০৬-১৭-০০-৯০ আ-হৃ