পৌর শহরে পানি নেই ৬ দিন মানুষের চরম দুর্ভোগ….

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

লক্ষীপুরর রামগঞ্জ প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হওয়ার পরও পৌর শহরে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। বিদ্যুৎতের ভেলকিবাজীতে প্রকট আকার ধারন করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পানি সরবরাহ করতে না পারায় শহরে বসবাসরত বিভিন্ন ফ্যামেলি বাসার লোকজন গত ৫ দিন থেকে মানবেতর জীবন-যাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন। অনেকই পানির অভাবে বাজার থেকে বোতলজাত পানি ক্রয় ও হোটেল থেকে খাবার কিনে খেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অনেকেই। হোটেল গুলোতে ও দেখা দিয়েছে খাবার পানির তীব্র সঙ্কট। ব্যবসায়ীরা বাধ্য হয়ে বিভিন্ন পুকুর ও ডোবানালা থেকে পানি নিয়ে সে পানি দিয়ে রান্নাবান্নার কাজসহ দৈনন্দিন কার্যক্রম চালাচ্ছেন। শহরের ৫ তলা ভবনের ভাড়াটিয়া আয়েশা মিনা জানান, পানির অভাবে রান্নাবান্নার কাজে চরম ব্যঘাত পোহাতে হচ্ছে। খাবার পানির তীব্র সঙ্কটের কারণে বাজার থেকে পানির বোতল কিনতে হচ্ছে । ধোয়া-মোছার কাজ একপ্রকার বন্ধ রয়েছে। পার্শ্ববর্তী বাসার টিউবওয়েল থেকে পানি এনে গোসল করতে হচ্ছে। এভাবে কতদিন? টয়লেটেও পানি নেই। গোসলখানায় জামাকাপড়ের স্তুপ হয়ে আছে পানি না থাকায়। শহরের আয়েশা রেস্টুরেন্টে গিয়ে দেখা যায়, জগে রাখা পানির রং সবুজ শ্যাওলাযুক্ত। আর দোকান কর্মচারীরা কলস নিয়ে থানা পুকুর থেকে পানি আনছেন। আর সেই পানি দিয়ে চলছে রান্নাবান্না সহ যাবতীয় কার্যক্রম। ইসলামী ব্যাংক সংলগ্ন কয়েকটি বাসায়ও একই অবস্থা। টিউবওয়েল থেকে পানি নিয়ে পাঁচতলায় তুলতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ভাড়াটিয়াদের। শহরের কোথাও আলাদাভাবে টিউবওয়েলের ব্যবস্থা না থাকায় স্থানীয় ব্যাবসায়ীরা বিভিন্ন বাসা বাড়ীর নিছে স্থাপন করা টিউবওয়েল থেকে পানি নিচ্ছে লাইনে দাঁড়িয়ে। অনেক বাসার মালিক বাধ্য হয়ে টিউবওয়েলের মুখ খুলে রেখেছেন, মানুষের চিৎকার চেচামেচির কারনে। রামগঞ্জ পৌরসভা পানি ব্যবস্থাপনার জন্য স্থাপিত টামটা ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুর রহমান জানান, বিদ্যুতের সমস্যা কারণে পানি সরবরাহে বেগ পেতে হচ্ছে। বিদ্যুতের লোডশেডিং এতটাই নাজুক যে শহরে পানি সরবরাহ ঠিকমতো করা সম্ভব হচ্ছে না। পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী আবুল আনছার জানান, বিদ্যুত সমস্যার সমাধান হলে পৌরসভার বাসা বাড়ীতে পানি দেয়া সম্ভব হবে। আমরা কথা বলেছি বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের সাথে। তারা জানিয়েছেন শীগ্রই-এর সমাধান হবে। তাছাড়া গত শনিবার সকাল থেকে বাসাবাড়ীতে পানি সরবরাহ আগের থেকে বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও তিনি দাবী করেন। রামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আবুল খায়ের পাটওয়ারী বলেন, বিদ্যুতের লো-ভোল্টেজের কারনে পানি সরবরাহ ঠিকমতো করা যাচ্ছে না। আশা করি দু’একদিনের মধ্যে সমাধান হয়ে যাবে।

২২-০৫-২০১৭-০০-১২০-২২- ফরহাদুল কামাল/