পকেটে ইয়াবা দিয়ে সাংবাদিককে কোর্টে চালান দিলো পুলিশ : অনলাইন প্রেস ইউনিটির শর্তহীন মুক্তি দাবী

স্টাফ রিপোর্টার

মারধর করে উল্টো মাদকের মামলায় ফাঁসানো হয়েছে ডেইলি অবজারভারের ফটো সাংবাদিক আশিক মোহাম্মদকে। আর এই ঘটনার মূল কারিগর পল্টন থানার উপ-পরিদর্শক আশরাফ। পরিবার বলছে, ১ লাখ টাকা ঘুষ না দেয়ায় আশিককে চালান দেয়া হয়েছে মাদক মামলায়। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ বলছে, ইয়াবাসহ গ্রেফতার হয়েছে আশিক। তবে ঘুষ চাওয়ার কথা আনুষ্ঠানিকভাবে জানালে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ।

২৭ জুন মধ্যরাতে ১টি দাওয়াতে অংশ নিয়ে দক্ষিণ বনশ্রীর বাসায় ফিরছিলেন ইংরেজি দৈনিক অবজারভারের ফটো সাংবাদিক আশিক। শান্তিনগর কাঁচাবাজারের কাছে তার বাইকটি থামায় পল্টন থানার ১টি টহল দল। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বাকবিত-ার একপর্যায়ে কেড়ে নেয়া হয় আশিকের সেলফোন। পুলিশ ভ্যানে তুলে রাস্তায় রাস্তায় ঘোরানো হয় রাত ২টা পর্যন্ত। থানায় নিয়ে কয়েক দফা মারধরের পর দাবি করা হয় ১ লাখ টাকা ঘুষ। আশিক টাকা দিতে অপারগতা জানালে ইয়াবাসহ গ্রেফতারের কথা বলে চালান দেয়া হয় মাদকের মামলায়।

আশিকের মা বলেন, আমরা ১ লাখ টাকা কিভাবে দিবো। আমাদের ১ লাখ টাকা দেয়ার সামর্থ্য নেই। আমি কেন দেবো। পুলিশরা ইয়াবা দিয়ে দিয়েছে। পরদিন সকালে পুলিশ ফোন দিয়ে বলে, আপনার ছেলের সঙ্গে কি পুলিশের শত্রুতা ছিল। আমি জানাই, এমন কিছু ছিল না। আর এই ঘটনার মূল কারিগর পল্টন থানার এসআই আশরাফ। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে পল্টন থানায় গিয়ে পাওয়া যায়নি তাকে। পরে টেলিফোনে যোগাযোগ করলে নিজের পক্ষে সাফাই দেয়ার চেষ্টা করেন তিনি। আশরাফ বলেন, এভাবে বললে হবে না ভাই। মারধর করা, ইয়াবা দেয়া সহজ কথা নয়। পুলিশ এত বোকা নয়। সে সাংবাদিক কিনা তা যাচাই-বাছাই হবে।

এদিকে পুলিশের মতিঝিল বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জানান, ঘুষ চাওয়ার বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানালে তদন্ত করে দেখবেন তারা। তিনি বলেন, মাদকসহ কেউ গ্রেফতার হলে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে তার পরিবার যা বলছে, তা যদি লিখিতভাবে অভিযোগ দেয় তার তদন্ত করা হবে। আশিকের অসুস্থ বাবাকে এখনও জানানো হয়নি ছেলেকে গ্রেফতারের কথা। আর একমাত্র সন্তানের মুক্তির আশায় দিন গুনছেন তার মা।

এই ঘটনার সাথে জড়িতদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতার ও বিচারের পাশাপাশি সাংবাদিক-এর শর্তহীন মুক্তি চেয়েছেন অনলাইন প্রেস ইউনিটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মোমিন মেহেদী, ভাইস চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম টিপু, শান্তা ফারজানা, মহাসচিব ডা. নূরজাহান নীরা প্রমুখ৤