‘ট্রোজান ভাইরাসের’ মতো আবারো সাইবার হামলার শঙ্কা…

 ডেস্ক রিপোর্ট , বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

শিগগিরই আরেকটি বড় ধরনের সাইবার হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার (এনএসএ) তৈরি হ্যাকিং টুলস চুরির পর শুক্রবার একযোগে এক লাখ ২৫ হাজারের বেশি কম্পিউটার সিস্টেম সাইবার হামলার শিকার হয়েছিল। তারপরই এ ধরনের আশঙ্কা প্রকাশ করা হলো।

শুক্রবার যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, স্পেন, ইতালি আর তাইওয়ানের মতো উন্নত প্রযুক্তির রাষ্ট্রগুলোসহ বিশ্বের ১০০টি দেশে বড় ধরনের সাইবার হামলার ঘটনা ঘটে। এসব দেশের স্বাস্থ্য, টেলিকম বা যোগাযোগের মতো বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে ‘র‌্যানসমওয়্যার’ ছড়িয়ে কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ নেয় হ্যাকাররা। বিশেষ করে সাইবার হামলায় বড় ধরনের সংকটে পড়েছে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ।

জানা যায়, একটি ম্যালওয়্যার মাধ্যমে চালানো হামলার শিকার কম্পিউটারগুলোর স্ক্রিনে হ্যাকাররা কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে বিটকয়েনের মাধ্যমে ৩০০ থেকে ৬০০ ডলার মুক্তিপণ দাবি করেন। বিবিসি জানায়, হামলার শিকার তিনটি অ্যাকাউন্ট থেকে তারা জানতে পেরেছেন, ইতিমধ্যে হ্যাকারদের ২২ হাজার ৮০ পাউন্ড দেয়া হয়েছে।

পরবর্তীতে টুইটারে ম্যালওয়ারটেক নামে একটি আইডি থেকে জানানো হয়, তিনি সাইবার নিরাপত্তা গবেষক এবং চেষ্টার পর আরো ব্যাপক হামলার প্রচেষ্টা প্রাথমিকভাবে নস্যাৎ করতে সক্ষম হয়েছেন।

নিজের পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ম্যালাওয়ারটেক আইডি ব্যবহারকারী ২২ বছরের ওই তরুণ বলেন, আমরা একে ঠেকিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছি। তবে সোমবার আরেকটি হামলা আসতে পারে, এটি আমাদের পক্ষে ঠেকানো সম্ভব হবে না।

তার মতে, কোড পরিবর্তন এবং নতুন করে হামলা চালানো হ্যাকারদের জন্য তেমন জটিল কিছু নয়। তাই তারা আবার এটি করতে পারে। হয়তো রবিবার নয়, সম্ভবত সোমবার সকালে। কারণ এর সাথে বিশাল পরিমাণ অর্থ জড়িত।

‘র‌্যানসমওয়্যার’ হচ্ছে এমন এক ধরনের ম্যালওয়ার বা ভাইরাস, যা কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় এবং ব্যবহারকারীকে প্রবেশে বাধা দেয়। অনেক সময় হার্ডডিস্কের অংশ বা ফাইল পাসওয়ার্ড দিয়ে অবোধ্য করে ফেলে। পরে ওই কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ ফেরত পেতে মুক্তিপণ বা অর্থ দাবি করা হয়। ‘ট্রোজান ভাইরাসের’ মতো এ ধরনের ম্যালওয়ার এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

১৪/৫/২০১৭/২৬০/তৌ/আ/