চাঁপাইনবাবগঞ্জ-এ পরমাণু কৃষি গবেষনা ইনষ্টিটিউটের উপকেন্দ্র

নিয়াজ কমল সহ-সম্পাদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

অতিসম্প্রতি    চাঁপাইনবাবাগন্জ   জেলায়    গড়ে   উঠেছে   বাংলাদেশ   পরমাণু   কৃষি   গবেষনা   ইনষ্টিটিউটের    একটি   উপকেন্দ্র  ।  বেশ   ব্যায়  সাপেক্ষে   কয়েক   একর   জমির   উপর   উপকেন্দ্রটি    গড়ে   উঠছে  ।   অল্পকিছুদিন   আগে    বাংলাদেশ     সরকারের    প্রধান  মন্ত্রী    ও  বীর   বাঙ্গালী   বঙ্গ  বন্ধু”র    কন্যা শেখ  হাসিনা   নিজে    চাঁপাইনবাবগন্জ   জেলায়   এসে   নিজ   হস্তে    এর    ভিত্তি  প্রস্তর   স্থাপন    করে   গেছেন  ।   মূলতঃ   চাঁপাইনবাবগন্জে    কৃষি   বিষয়ক    গবেষণা   বেপক   হারে   চালু  করার   লক্ষ্যে    এটি   স্থাপনের   জন্য    স্থানীয়   নেত্রীবৃন্দ   বেশ    চেষ্টা   করেছিলেন ।   বাংলাদেশ   পরমাণূ   কৃষি   গবেষনা   ইনষ্টিটিউট   কে    সংক্ষেপে   “বিনা”   বলা    হয়  ।   যা     ইংরেজীতে   BANGLADESH    INSTITUTE   OF   NUCLEAR    AGRICULTURE  ( BINA )   নামকরন   করা   হয়  ।   যেহেতু    বাংলাদেশের    মূল   অর্থনৈতীক   কর্মকান্ড  কৃষি    তাই   এ   কৃষির   উন্নয়ন    ও   সম্প্রসারনের   মানষিকতাকে    কাঝে   লাগিয়ে   বাংলাদেশের   কৃষিজ   কর্মকান্ডের   গুনমান    ধীরে   ধীরৈ    বাড়িয়ে   তুলার   লক্ষ্যে    এ   ধরনের    প্রতিষ্ঠানগুলো    গঢ়েতোলা   হচ্ছে  ।    এব্যাপারে   বিগত   দিনের   কথা   বলা  যেতে   পারে    যে  ,   এ   বাংলাদেশের   মাটিতে   কৃষির   ব্যাপারে   উন্নত   কর্মকান্ড   শুরু   হয়   ১৯৬১  সনে  ঢাকাস্থ   পরমাণু   শক্তি   কমিশনের   অধিনে  ।পরবর্তীতে    এর   গুরুত্ব   বিবেচনা   করে   ১৯৭২   সালের   ১লা   জুলাই    একটু   বড়রকমের   পদক্ষেপ   নেয়া   হয়  ।   এর  পর   ১৯৭৫   সনে   এটিকে    ময়মনসিংহ   জেলায়    অবস্থিত   কৃষিবিশ্ববিদ্যালয়ের     চত্তরে   স্থানান্তর    করা   হয়  ।  ১৯৮২   সালে   কেন্দ্রটিকে  বাংলাদেশ   পরমাণু  শক্তি   কমিশন   হতে   পৃথক   করে    কৃষি   মন্ত্রনালয়ের   অধীনে   অন্তরভূক্ত   করা   হয়  ।   এর   পর    ১৯৮৪   সালে   প্রতিষ্ঠানটিকে  মহামান্যরাষ্ট্রপতি   কর্তৃক   অধ্যাদেশের   মাধ্যমে  BINA  নামকরন    করা   হয়  ।  যাই   হোক  আমাদের   বাংলাদেশের   কৃষি   উন্নয়নের   জন্য   ব্যাপক   উন্নয়ন   মূলক   কাজ   অত্যাবশ্যকিয়  ।  তাই   পরমাণু  শক্তির   শান্তিপূর্ন    ব্যাবহারের    মাধ্যমে   কৃষিভিত্তিক   বিষয়ে  পরমাণূ   শক্তির  ব্যাবহার   করে    উন্নত    আবিষ্কারিই    হচ্ছে    এ   প্রতিষ্ঠানের   মূললক্ষ্য  ।  প্রতিষ্ঠানটি   মূলতঃ  উদ্ভিদ   প্রজনন  ,    ক্রপ   ফিজিওলোজী  ,   মৃত্ত্কিা   বিজ্ঞান  ,কীটতত্ব  ,   উদ্ভিদ  রোগ  তত্ব  ,   কৃষিতত্ব  ,   কৃষি  প্রকৌশল    এবং   প্রশিক্ষন  ,   যোগায়োগ    ও   প্রকাশনা   নিয়ে    কাজ   করে   যাচ্ছে  ।   প্রতিষ্ঠানটির    আওতায়    মূলতঃ   খামার   প্রকৌশল  ,   ইলেকট্রনিক্স  ,   গ্রন্থাগার  ,   প্রশাষন  ,  জন   ব্যাবস্থা   ও   সাপোর্টসার্ভিস   ,   হিসাব  ,  সংগ্রহ   ও   ভান্ডার   শাখা    আছে  ।  এছাড়া    সার্বিক    পরিকল্পনা    প্রনয়  ও   বাস্তবায়নের   একটি   পরিকল্পনা  ও   উন্নয়ন   কোষ   আছে  ।   নব্যগঠিত    চাঁপাইনবাবগন্জ   জেলাতে     বিনার    প্রতিস্ঠানটিতে   বর্তমানে    বৈজ্ঞানিক    কর্মকর্তা  ও  ভারপ্রাপ্ত   কর্মকর্তা    হিসাবে    এক  জন  ,   এক  জন    ফার্ম   ম্যানেজার  ,   এক    জন   সহকারি    বৈজ্ঞানিক    কর্মকর্তাসহ    বেশ   কিছু   শ্রমিক    কাজ   করছে  ।   বৈজ্ঞানিক    কর্মকর্তা   এবি   এম   শফিউল    আলমের   সঙ্গে   আলাপে   জানা   যায়   অল্প   কিছু  দিনের    মধ্যেই    এপ্রতিষ্ঠানটি   তার   পূর্নাঙ্গ    রুপ    নিবে   ।