খালেদার অফিসে অভিযান ‘গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতেই’ ওবায়দুল কাদের…

ইব্রাহিম খলিল প্রধান, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে খালেদা জিয়ার অফিসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান পরিচালিত হয়েছে বলে দাবি করছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। রবিবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ প্রিয়াঙ্কা কমিউনিটি সেন্টারে দলের দপ্তর বিভাগের এক সভায় এমন দাবি করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এত দিন তো বিএনপি অফিসে অভিযানের কোনো অভিযোগ ছিল না। হঠাৎ করে এটা কেন হলো, তা নিয়ে আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির সঙ্গে আলাপ করেছি। তারা আমাকে জানিয়েছেন, তাদের কাছে কিছু গোয়েন্দা রিপোর্ট ছিল। তার ভিত্তিতে তারা এ অভিযান পরিচালনা করেছে।

তিনি বলেন, এখন মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ অভিযানের সঙ্গে গণতন্ত্রের সম্পর্ক আবিষ্কার করেছেন। তারা যখন ক্ষমতায় ছিলেন দফায় দফায় আমাদের পার্টি অফিসে হামলা চালিয়েছিলেন। আমাদের সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) সিলগালা করে দিয়েছেন। এটা কি হয়নি? তাদের সময় আওয়ামী লীগ অফিসে শুধু অভিযানই হয়নি, নেতাকর্মীদের নির্যাতন করা হয়েছে, অফিসের দিকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা হয়েছিল। এসব কি তারা ভুলে গেছে? তখন কি গণতন্ত্র সঠিক ছিল?

উল্লেখ্য, শনিবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপরসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে অভিযান চালায় পুলিশ। সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত চলে এই অভিযান। কার্যালয়টিতে রাষ্ট্রবিরোধী কোনো নথিপত্র আছে কি না, সে বিষয়ে আদালতের পরোয়ানা থাকায় সেখানে তল্লাশি চালানো হয় বলে দাবি করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে তল্লাশিতে কিছুই পাওয়া যায়নি।

খালেদা জিয়ার অফিসে অভিযানের বিষয়টি ছাড়াও নিজ দল আওয়ামী লীগ প্রসঙ্গে কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। দলীয় শৃঙ্খলার প্রশ্নে দলের প্রভাবশালীদেরও ছাড় দেয়া হবে না- এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন রাখার জন্য কোনো প্রভাবশালী ব্যক্তিকেও ছাড় দেয়া হবে না। ইতোমধ্যে পাবনা, সিরাজগঞ্জ, চাঁদপুরে ঘটনায় কাউকে ছাড় দেইনি আমরা।

আশেপাশের লোকদের সম্পর্কে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের আশেপাশের লোকদের কার্যকলাপ সম্পর্কে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। আমি ভালো, আমার আশপাশের লোক ভালো না, সেটা কিন্তু ভালো না। সবাইকে একযোগে ভালো কাজ করতে হবে।

আওয়ামী লীগ নেতাদের আরো উন্নত আচরণের মাধ্যমে জনগণের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, আপনাদের আচারণের কারণে আওয়ামী লীগ সরকারের এত উন্নয়ন, অর্জনের পরও জনগণ যদি ক্ষুব্ধ হয়; তাহলে ভোটের রাজনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

সারা দেশে জেলা ও উপজেলায় আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় স্থাপনের তাগিদ দিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেত্রী চেয়েছেন প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দলের একটা নিজস্ব কার্যালয় যেন থাকে। এ বিষয়টা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। যেসব জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নিজস্ব অফিস নেই, সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসিম কুমার উকিল, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, উপ-দপ্তর বিপ্লব বড়ুয়া, কার্য নির্বাহী সদস্য মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ।

২১-০৫-২০১৭-০০-২৫০–২১