কোটা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের চিন্তা নেই

স্টাফ রিপোর্টার

মুক্তিযোদ্ধারা সরকারকে যে আহ্বান জানাচ্ছে, এই আহ্বান নিশ্চয়ই সরকারের বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছেছে। সরকার নিশ্চয়ই দেখবে। প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে দেখবেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে নেতারা উপরোক্ত কথা বলেছেন৤ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি চাকরির কোটা পদ্ধতি বাতিলের ঘোষণায় ছাত্ররা খু?শি হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মাদার অব এডুকেশন আখ্যা দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি নিয়ে ছাত্ররা জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু সেস্নাগান দিয়েছে কিন্তু সবাই খুশি হলেও বিএনপি খুশি হতে পারেনি। তারা এই আন্দোলনকে নিয়ে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করতে চেয়েছিল। তাদের ষড়যন্ত্রের রাজনীতির পরাজয় হয়েছে বিধায় তাদের এতো গাত্রদাহ। তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির বাসভব?নে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও তারেক রহমানের টেলিফোনে নির্দেশনা একই সূত্রে গাঁথা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির বাসভবনে এই ধরনের হামলা একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধের সময়ও হয়নি। বাংলাদেশের ইতিহাসে শুধু নয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসেও এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা হয়নি। এগুলো যারা করেছে এরা দুস্কৃতকারী। এসবের সাথে তারেক রহমানের টেলিফোন এবং নির্দেশনা সংযুক্ত। তাদের আলাদা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। বিএনপি নেতাদের এমন প্রতিক্রিয়ারও জবাব দিয়েছেন হাছান। বলেন, ‘বিএনপি আন্দোলনে বার বার ব্যর্থ হয়ে ‘পরগাছা দলে’ পরিণত হয়েছে। তেল-গ্যাস কমিটির আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে নিজেরা বেঁচে থাকার চেষ্টা করেছিল। এখন আবার কোটাবিরোধী আন্দোলনকে আঁকড়ে ধরে বেঁচে থাকার চেষ্টা করেছে বিএনপি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রলীগ সভাপতির ইফফাত জাহান এশার বিরুদ্ধে এক ছাত্রীর রগ কেটে দেয়ার গুজবের পর তদন্ত ছাড়া তাকে বহিষ্কার মৌলিক অধিকার পরিপন্থী ছিল বলেও মনে করেন আওয়ামী লীগ নেতা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা, উপ দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কেন্দ্রীয় সদস্য আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।