কাচের মত ভেঙ্গে চুরে শেষ “এরশাদ জোট”…

স্টাফ রিপোটার, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

এরশাদের নেতৃত্বে ‘সম্মিলিত জাতীয় জোট’ (ইউএনএ) গঠনের ৯ দিনের মাথায় ভাঙনের মুখে পড়েছে- গণমাধ্যমে আসা এ খবরকে ‘সঠিক নয়’ বলে দাবি করেছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। দলটির দাবি, জাপার নেতৃত্বে হওয়া জোট থেকে কেউ বের হয়নি। যাদের নিয়ে জোট করা হয়েছে, সবাই জোটেই আছে। বরং জোটকে সম্প্রসারণের কাজ চলছে বলেও দাবি দলটির নেতাদের। জাপা মহাসচিব ও ইউএনএ’র মুখপাত্র এবিএম রুহুল আমিনহাওলাদার বলেন, দুটি দল আর দুটি পৃথক জোট নিয়ে জাপার নেতৃত্বে ইউএনএ গঠন করা হয়েছে। দুটি দল হলো- জাপা ও বাংলাদেশ ইসলামি ফ্রন্ট। আর দুটি জোট হলো- জাতীয় ইসলামি মহাজোট ও বাংলাদেশ জাতীয় জোট-বিএনএ। ইউএনএ’র শরিক দুটি জোটের ভেতরে কোনো সমস্যা থাকলে সেটি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়, এর সঙ্গে ইউএনএ’র কোনো সম্পর্ক নেই।

হাওলাদার জানান, এরশাদের নেতৃত্বে গঠিত জোটকে সম্প্রসারণের লক্ষ্যে নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দলের সঙ্গে ইতোমধ্যে কথাবার্তাও হয়েছে। একই তথ্য জানান জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জোটের সমন্বয়কারী সুনীল শুভ রায়ও।

প্রসঙ্গত, গত ৭ মে ইউএনএ ঘোষণা করেন এরশাদ। এর মধ্যে জাপা ও ইসলামি ফ্রন্ট নিবন্ধিত দল। জাতীয় ইসলামি মহাজোটে ৩৪টি এবং বিএনএ-তে ২২টি দল রয়েছে। সবমিলিয়ে এরশাদের জোটে দলের সংখ্যা ৫৮টি। এরমধ্যে আর্থিক লেনদেনসহ কিছু ইস্যুতে মতপার্থক্য দেখা দেয়ায় বিএনএ থেকে ১১টি দল বের হয়ে গেছে বলে দাবি করে কয়েকটি ছোট ছোট নামসর্বস্ব দল।

তবে বিষয়টিকে ‘ভিত্তিহীন’ ও ‘চক্রান্ত’ বলে দাবি করেছেন বিএনএ চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলী মনি। গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত বিএনএ’র কার্যনির্বাহী পরিষদের জরুরি সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

পরে গণমাধ্যমে পাঠানো বিএনএ’র এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যে ১১টি দল বিএনএ থেকে বের হয়ে গেছে বলে লেখালেখি হচ্ছে মূলত ঐসব দল বিএনএ জোটে কখনও ছিল না। বিএনএ’এর সঙ্গে সম্পৃক্ত ২২টি রাজনৈতিক দল হলো- বাংলাদেশ লেবার পার্টি, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি, ইসলামি ডেমোক্রেটিক পার্টি, ইউনাইটেড মুসলিম লীগ, বাংলাদেশ গ্রামীণ পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল মাইনরিটি পার্টি, বাংলাদেশ পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ জনতা ফ্রন্ট, জাতীয় হিন্দুলীগ, বাংলাদেশ সোস্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি, পিপলস সোসালিস্ট পার্টি অব বাংলাদেশ, রিপাবলিকান পার্টি, সম্মিলিত নাগরিক পার্টি, পিপলস রাইট পার্টি, কনজারভেটিভ পার্টি, জাতীয় জনতা পার্টি বাংলাদেশ, ইসলামি গণ-অধিকার পার্টি, জাতীয় গণসংগ্রাম পার্টি, গণতান্ত্রিক মুসলীম পার্টি, বাংলাদেশ কৃষক পার্টি ও সমাজতান্ত্রিক দল বাংলাদেশ।

২১-০৫-২০১৭-০০-১০-২১-তৌহিদ আজিজ