একযোগে ৯৯ দেশে সাইবার হামলা…

ডেস্ক রিপোর্ট , বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে একযোগে বেশ বড় ধরনের সাইবার হামলা হয়েছে। উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ থেকে শুরু করে এশিয়া পর্যন্ত অন্তত ৯৯টি দেশে এই হামলা করেছে হ্যাকাররা।

এসব দেশে একটি ‘র‌্যানসমওয়্যার’ ছড়িয়ে দিয়েছে হ্যাকাররা, যাতে আক্রান্ত হয়েছে স্বাস্থ্য ও টেলিকমসহ বিভিন্ন খাতের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের নেটওয়ার্ক।

বিবিসি জানিয়েছে, শুক্রবার বাংলাদেশ সময় মধ্যরাত পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, স্পেন, ইতালি, ভিয়েতনাম, তাইওয়ানসহ বিভিন্ন দেশে এই ‘র‌্যানসমওয়্যার’ ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া যায়।

হ্যাকারদের ছড়িয়ে দেওয়া সফটওয়্যারে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে কম্পিউটার ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়ে। একটি ম্যালওয়্যার বিভিন্ন সংস্থার নেটওয়ার্কের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে কম্পিউটার স্ক্রিনে একটি বার্তা দিচ্ছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির ওয়েবসাইট অচল করে দিয়ে এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে বিটকয়েনের মাধ্যমে ৩০০ থেকে ৬০০ মার্কিন ডলার দাবি করে।

আক্রান্ত অনেকে তাদের কম্পিউটার স্ক্রিনের ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করছেন। এ বিপর্যয় থেকে বেরিয়ে আসতে একযোগে কাজ শুরু করেছেন প্রযুক্তি নিরাপত্তা গবেষকরা। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘ওয়ানাক্রাই’ নামের পুরনো একটি ম্যালওয়্যারের নতুন কয়েকটি সংস্করণের মাধ্যমে এই সাইবার হামলা চালানো হয়েছে।

‘র‌্যানসমওয়্যার’ হল এক ধরনের ম্যালওয়্যার যা কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর ব্যবহারকারীর কাজে বাধা দেয় এবং অনেক সময় হার্ড ড্রাইভের তথ্য একটি নির্দিষ্ট পাসওয়ার্ড দিয়ে এনক্রিপ্ট করে ফেলে। এর ফলে ব্যবহারকারী ওই কম্পিউটার ব্যবহার করতে গেলে তার কাছে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অর্থ দাবি করা হয় এ অবস্থা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য।

ইন্টারনেট নিরাপত্তাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাভাস্টের বিশেষজ্ঞ ইয়াকুব রৌসতেক বলেন, এটা অনেক বড় হামলার ঘটনা। এ ধরনের ম্যালওয়্যার কম্পিউটার ওয়ার্ম বা ট্রোজান ভাইরাসের মতো নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এদিকে সাইবার নিরাপত্তা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান কাসপারস্কি বলছে, তারা এ পর্যন্ত ৭৫ হাজার কম্পিউটারে র‍্যানসমওয়্যার প্রবেশের ঘটনা শনাক্ত করেছে। এই হ্যাকিংয়ের ঘটনা বেড়েই চলেছে।

এই সাইবার হামলায় বড় ধরনের জটিলতায় পড়েছে ইংল্যান্ডের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)।

সেদেশের অন্যতম এই রাষ্ট্রায়ত্ত চিকিৎসা সেবা ইউনিটের আইটি নেটওয়ার্ক আক্রান্ত হওয়ায় শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাদের আওতাধীন হাসপাতাল ও ট্রাস্টগুলোর স্বাভাবিক কার্যক্রম থমকে যায়। ফলে এসব হাসপাতালের কর্মীরা তাদের কম্পিউটারে রোগীদের তথ্য দেখতে পারছিলেন না।

কম্পিউটার সচল না থাকায় অনেক হাসপাতালে জরুরি চিকিৎসা ছাড়া অন্য সব সেবা বন্ধ রাখতে হয়। বিভিন্ন হাসপাতালে রোগীদের সাক্ষাতের সূচিও বাতিল করা হয়। এনএইচএস এক বিবৃতিতে জানায়, কেবল তারাই এ হামলার শিকার হয়নি। আরো বেশ কিছু সংস্থায় একই ধরনের হামলার খবর পেয়েছে তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের ডেলিভারি কোম্পানি ফেডএক্সও এই হ্যাকিংয়ের শিকার হওয়ার কথা জানিয়েছে। তারা বলেছে, তাদের উইন্ডোজভিত্তিক কিছু কম্পিউটার এই ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত হয়েছে। তবে দ্রুত এই জটিলতা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে তারা।

১৩/৫/২০১৭/১০০/ম/জা/