আত্মপ্রেমের করুণ পরিণতি সেলফি রোগ…

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলারিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকম

গ্রীক পুরাণে নার্সিসাসের আত্মপ্রেমের পরিণতির গল্প আমরা কম বেশী সকলেই জানি। নার্সিসাসের সৌন্দর্য এমনই রমণীমোহন ছিল যে, কোনো যুবতী তাকে একবার দেখলেই তার প্রেমে পড়ে যেত, কিন্তু নার্সিসাস কখনোই কাউকে সাড়া দিতো না । এমনকি সবচেয়ে সুন্দরীকেও অবজ্ঞাভরে উপেক্ষা করত অবলীলাক্রমে। নার্সিসাসের প্রেমে মুগ্ধ দেবী ইকো প্রেমের আঁকুতি জানিয়ে আহবান জানায় নার্সিসাসকে। কিন্তু নার্সিসাস ফিরিয়ে দেয় ইকোকে । প্রেম প্রত্যাখ্যাত ইকো অভিশাপ দেয় নার্সিসাসকে । যেন সেও একদিন এরকম ভাবে ভালবাসার আঘাত পায়। দুঃখ পেয়ে কাঁদতে কাঁদতে পাথর হয়ে যায় দেবী ইকোর শরীর । প্রত্যাখ্যাত ইকোর অভিশাপ অদ্ভুত ভাবে কার্যকর হয় নার্সিসাসের জীবনে।

একদিন পানি খেতে গিয়ে কোনো এক জলাশয়ে নার্সিসাসের জীবনে প্রথমবারের মত নিজের চেহারা দেখতে পায় এবং নিজের রূপে নিজেই বিমোহিত হয়ে পড়ে। তাৎক্ষণিক সে নিজেই নিজের প্রেমে পড়ে গেল। প্রেমে পড়ে নিজের প্রতিবিম্ব যুবকের দিকে অপলক তাকিয়েই থাকে পানির দিকে। কিন্তু পরবর্তীতে যখন সে বুঝতে পারে জলাশয়ের মুখ তার নিজেরই ছায়া । তখন সে পাগল হয়ে সেই জলাশয়ের ওপর দিনের পরের দিন পলকহীন তাকিয়ে থেকে সে ক্রমশ শীর্ণ হয়ে গিয়ে একদিন মৃত্যুর মুখে ঢলে পরে ।

মোবাইল ফোনে নিজের হাতে নিজে ছবি তোলার নাম সেলফি । বর্তমান সময়ে মানুষের এই শৌখিনতা ক্রমেই একটি রোগে পরিণত হয়েছে । সেলফিতে ছবি পোস্ট করে মানুষ যেনো বোঝাতে চায় ‘ দেখো আমি কতো সুখী ‘। শুধু কিশোর কিশোরীই নয় , এই রোগে আক্রান্ত সকল বয়সের মানুষ । সেলফি তোলার এই প্রবণতায় আক্রান্ত পৃথিবীর ক্ষমতাধর রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে এখন সাধারণ কৃষক পর্যন্ত। এমনকি সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সংসার ভাঙতে বসেছিলো একটি সেলফির কারণে । সে ছবিটি আমরা সকলেই দেখেছি । প্রেসিডেন্ট ওবামা তার স্ত্রী মিশেল ওবামাকে অন্য পাশে রেখে অন্য নারীর সাথে ছবি তুলেছিলেন । এতে মারাত্মক ভাবে আহত বোধ করেন ফার্স্ট লেডি মিশেল । কয়েকদিন পরে গুজব উঠেছিলো সেলফির কারণে ঘর ভাঙছে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার!

নিজের প্রতি নিজের মুগ্ধ হয়ে নিজে ছবি তোলা হয় বলেই এই সেলফিকে বলা হয় নার্সিসাস রোগ। গ্রীক পুরাণের এই গল্প থেকেই এসেছে নার্সিসিজম শব্দটি । যার অর্থ নিজের রূপে মুগ্ধ হওয়া বা কেবল নিজেকেই ভালোবাসা। আর এই নিজেকে ভালোবাসার নমুনাই আমরা প্রতিদিন সিনেমা দেখার আনন্দ নিয়ে উপভোগ করি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে । অতি সম্প্রতি গবেষক দাবি করেছেন ঘন ঘন সেলফির অভ্যাস মানসিক বিকারের লক্ষণ । সেলফি তুলতে গিয়ে জীবন বিপন্ন হয়েছে এমন ঘটনার সংখাও কম নয়।

তবে এ ধরণের সাধারণ ছেলে মানুষি শখ মানুষের জীবনে করুণ পরিণতি বয়ে আনতে পারে । এমনটিই হতে দেখা গেলো বনানী ঘটনার আসামীর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সেলফি তোলার কারণে ।

বনানীর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলার অন্যতম আসামি নাঈম আশরাফ এর সাথে সেলফি তোলার বিষয়কে কেন্দ্র করে সম্প্রতি সংবাদ উপস্থাপিকা ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ফারহানা শবনম নিশোকে বেসরকারি টিভি চ্যানেল একুশে টিভি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তিনি এ চ্যানেলটির অনুষ্ঠান প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন।

সূত্রে জানা গেছে,কর্তৃপক্ষের আদেশক্রমে বুধবার ফারহানা শবনম নিশোকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। বনানীর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামির সাথে নিশোর একাধিক ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার কারণেই এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলেই অনেকে মনে করছেন ।

শুধু ফারহানা নিশোই নন । সমাজের অনেক ধরণের সেলিব্রেটিদের সাথেই সেলফি দেখা গেছে নাঈমের । যা অন্যদের জীবনে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে । হয়তো হতে পারে অত্যন্ত নিরীহ ভাবেই তারা ছবি তুলেছেন যা আগে থেকে কেউ জেনে রাখে না যে, যার সাথে ছবি তোলা হয়েছে সে একজন ধর্ষক অথবা খুনী । তাই অন্যান্য বিষয় বাদ দিয়ে শুধুমাত্র একটি সেলফির কারণে যদি কারো চাকরি চলে যায় তবে সেটি একজন মানুষের জন্য মর্মান্তিক বেদনার কারণ হয়ে দাড়ায় । যদি ফারহানা নিশো এই ঘটনার সাথে কোনভাবে জড়িত না থাকে তবে তাকে চাকরি থেকে বাদ দেয়া নীতিগত ভাবে মেনে নেয়া কষ্টকর । তাই সময় থাকতে এখনই সাবধান হওয়া প্রয়োজন যে যত্রতত্র যখন তখন অপরিচিত মানুষের সাথে সেলফি তোলা চরম বিপদ ডেকে আনতে পারে ।

১৮/৫/২০১৭/০-২০০-১৮/মনির জামান/